মেনু নির্বাচন করুন

চর কাশিমপুর আলিম মাদ্রাসা

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

ইতিহাস                                ঃ

অত্র মাদরাসাটি রাজশাহী জেলাধীন চাঁপাই নবাবগঞ্জ থানার অমত্মর্গত চরঅনুপনগর ইউনিয়নের চর কাশিমপুর গ্রামের মধ্যস্থলে অবস্থিত ছিল। উক্ত গ্রামের ধর্ম প্রাণ মুসল্লিগন হয়তো বুঝতে পেরেছিলেন শিক্ষা ছাড়া জীবন মূল্যহীন। শিক্ষায় একমাত্র সম্বল যা জীবনের মত মহামূল্যবান। তাদের সমত্মানেরা অজ্ঞনাতার অন্ধকারে নিমজ্জিত হোক তা তারা চাননি, তাই তারা মানব কল্যাণ ও সামাজিক উন্নয়নের জন্যই তাঁদের শারিরীক,মানষিক ও সর্বপরি আর্থিক সাহায্যে দ্বারা১৯৫৬ খ্রিঃ প্রথমে ফুরকানিয়া হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করেন। পরবর্তীতে অনেক ঘাত প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে ইহা ১৯৬৮ সালে দাখিল সত্মরে উন্নতি লাভ করে। তদানিমত্মন পাকসত্মানী সরকার সে সময় ইহাকে স্বীকৃতি প্রদান ও অনুদান ভুক্ত করেন। মাদরাসাটি শক্তিশালী ম্যানেজিং কমিটি ও যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষক মন্ডলী দ্বারা পরিচালিত হচ্ছিল কিমত্ম কালের চক্রে চরকাশিমপুর গ্রাম ও মাদরাসাটি মহানন্দা নদীর ভাঙ্গনে কবলিত হলে উক্ত গ্রাম ও হাতনাবাদ গ্রামের অধিবাসিগন পরামর্শক্রমে ১৯৮৪ সনে রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার বাসুদেবপুর ইউনিয়ন পরিষদের হাতনাবাদ গ্রামে রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ হাই রোড সংলগ্ন স্থানে স্থানামত্মরিত করেন। সে সময় অত্র মাদরাসার প্রাক্তন সুপার মাওলানা মোঃ মুয়াজ্জম হোসাইন ও প্রাক্তন শিক্ষক মাওলানা মোঃ আবেদ আলী সাহেবের অক্লামত্ম পরিশ্রমে মাদরাসাটির নাম পরিবর্তনের সম্ভব নাহলেও ইহা নতুন ঠিকানায় প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বর্তমানে ইহা তিন তলা সত্মর বিশিষ্ট একটি ঐতিয্য বাহী মাদরাসা। সত্য হলেও ইহা অত্যামত্ম দুংখের বিষয় যে অনেক চেষ্টা সত্বে ও এ পর্যমত্ম সরকারী অনুদানে কোন বিল্ডিং এই মাদরাসাই নির্মিত হয় নাই। বর্তমানে মাদরাসাটি সুশিক্ষিত গর্ভানিংবডি ও যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষক মন্ডলী দ্বারা অত্যামত্ম নিষ্ঠার সহিত শিক্ষা ও যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ মজিবুর রহমান ০১৭৫৮৩৫১২৯৫ abc@gmail.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল

ছাত্র/ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)                                ঃ

১ম শ্রেণী:       ছাত্র      - ১৫ জন

           :       ছাত্রী     - ১২ জন

২য় শ্রেণী:       ছাত্র      - ১৬ জন

           :       ছাত্রী     - ০৫ জন

৩য় শ্রেণী:       ছাত্র      - ১০ জন

           :       ছাত্রী     - ১৩ জন

৪র্থ শ্রেণী:       ছাত্র      - ১৬ জন

           :       ছাত্রী     - ১৪ জন

৫ম শ্রেণী:       ছাত্র      - ২৭ জন

           :       ছাত্রী     - ২৫ জন

৬ষ্ঠ শ্রেণী:       ছাত্র      - ৩৩ জন

           : ছাত্রী- ১৭ জন

৭ম শ্রেণী:       ছাত্র      - ৩৪ জন

           :       ছাত্রী     - ২১ জন

৮ম শ্রেণী:       ছাত্র      - ৩২ জন

           :       ছাত্রী     - ২৪ জন

৯ম শ্রেণী:       ছাত্র      - ১৭ জন

           :       ছাত্রী     - ১৫ জন

১০ম শ্রেণী  :    ছাত্র      - ১০ জন

           :       ছাত্রী     - ১৩ জন

আলিম ১ম:    ছাত্র      - ০০ জন

           :       ছাত্রী     - ০০ জন

আলিম ২য়:    ছাত্র      - ০৫ জন

           : ছাত্রী- ০৫ জন

জেডিসি/২০১১ - ৮৯.৫০%, দাখিল/২০১১ - ৫০.০০% ভাগ।

ক্র: নং

নাম

পদবী

  1.  

মোঃ আকবর আলী বিশ্বাস

সভাপতি

  1.  

আলহাজ্ব মোঃ আলাউদ্দীন বেলাল

সহ-সভাপতি

  1.  

আলহাজ্ব মোঃ মতিউর রহমান

সদস্য

  1.  

আলহাজ্ব এলাম উদ্দীন

সদস্য

  1.  

মোঃ শফিকুল ইসলাম

সদস্য

  1.  

মোঃ ওবাইদুল হক

সদস্য

  1.  

মোঃ আবুল কালাম আজাদ

সদস্য

  1.  

মোঃ আঃ খালেক

সদস্য

  1.  

মোঃ মজিবুর রহমান

সদস্য সচিব

  1.  

মোঃ মতিউর রহমান

সদস্য

  1.  

মোসাঃ ফাতেমা খাতুন

সদস্য

জেএসসি ২০১১ - ৮৯.০০%,

মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পিছনে নিশ্চয় কিছু লক্ষ্য ছিল। লক্ষ্য বিহীন কোন প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত হতে পারেনা। তাই অত্র প্রতিষ্ঠানের তাঁর লক্ষ্যে পৌছার জন্য অক্লামত্ম পরিশ্রম করে চলছে যাতে অত্র প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্ররিা ভবিষ্যতে মানুষের মত মানুষ গড়ে উঠতে পারে সে দিকে বিশেষ ভাবে নজর দেওয়া হয়।যাতে করে তাঁদের মানষিক শারীরিক ও আর্থিক উন্নয়নঘটে। সে ব্যাপারে বিশেষ তদারকি করা হয়। ফল স্বরূপ আমাদের প্রতিষ্ঠান বরাবর দাখিল পরীক্ষায় ভাল ফলাফল করে থাকে। আমাদের প্রতিষ্ঠান হতে যে সব ছাত্র ছাত্রী লেখাপড়া করেছে তাঁরা অনেকেই আজ সমাজে সুপ্রতিষ্ঠিত। বেশ কিছু ছাত্র/ ছা্রত্রী বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদরাসায় চাকুরীরত পরিশেষে বলা যায় ছাত্র- ছাত্রীদের মানষিক উৎকর্ষ সাধনই আমাদের বড় অর্জন এবং এটা আমরা করতে পেরেছি বলে আমাদের বিশ্বাস। তাছাড়া ১৯৮৮ সালে ৫ম শ্রেণির বৃত্তি পরীক্ষায় ( বাকী বিল্লাহ) রাজশাহী বিভাগে একজন ছাত্র প্রথম স্থান অধিকার করে ও ২০১০ সালে দাখিল ১০০% পাশ ও ২০১০ সালে আলিম পরীক্ষায় ১০০% পাশ। দাখিল বিভাগে ৫ জন A+ পেয়ে প্রতিষ্ঠানের মুখ উজ্জল করেছে।

সব মানুষের কিছু না কিছু ভবিষ্যত পরিকল্পনা রয়েছে। আমাদের প্রতিষ্ঠানও তাঁব্যাতিক্রম নয়। মানুষ মাত্রইসুখ শামিত্মর প্রত্যাশি। যেহেতু ছাত্র ছাত্রী নিয়ে আমাদের কারবার। আমাদের ছাত্র ছাত্রীরা যাতে মুক্ত পৃথিবীতে দাঁড়িয়ে উদার নীল আকাশ আর সবুজ প্রকৃতির রূপ আস্বাদন করতে পারে যথার্থ ভাবে সেটি আমাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনা। আমরা আমাদের ছাত্র ছাত্রীকে সমাজের সুনাগরিকের নিদর্শন হিসাব দাঁড় করাতে চায়। সে জন্য যা কিছু প্রয়োজন তাই আমরা করব। প্রতিটি ছাত্র ছাত্রীকে সময়ের যথাযত সদ্ব্যবহারের মাধ্যমে প্রকৃত মানুষ হিসাবে গড়ে উঠার কঠোর সংকল্প করব। সে জন্য আমরা শিক্ষক মন্ডলী ও ম্যানিজিং কমিটি একতাবদ্ব ভাবে ক্রমান্বয়ে অনুপ্রেরনা উচ্চশা তীব্র ইচ্ছা ও কঠিন পরিশ্রম দ্বারা তাহা বাসত্মবায়ন করব।আমাদের মাদরাসার বাউন্ডারী, খেলার মাঠ,বিজ্ঞানাগার ও কম্পিউটার ল্যাব নাই এগুলি নির্মানের জন্য আমাদের পাশাপাশি সরকারের স্বদইচ্ছা কামনা করছি।

0



Share with :

Facebook Twitter